বুধবার , মে ১৮ ২০২২
Home / Uncategorized / ভালোবাসার জন্য উত্যক্ত করার ফলে ১ যুবক হল লাশ আটক হল ৪ খুনি

ভালোবাসার জন্য উত্যক্ত করার ফলে ১ যুবক হল লাশ আটক হল ৪ খুনি

নেপাল ধরঃ ক্রাইম পেট্রোলের ঘটনাকে হার মানানো ময়মনসিংহের ট্রলি ব্যাগের রহস্য উদঘাটন করেছে জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ। গত ২০ অক্টোবর পাটগুদাম ব্রীজ সংলগ্ন স্থানে ট্রলি ব্যাগ পড়ে থাকতে দেখে জনগণ। ব্যাগে বোমা সন্দেহে ঘেরাও করে রাখে পুলিশ। রেঞ্জ ডিআইজি নিবাস চন্দ্র মাঝিসহ অধিনস্থ পুলিশ কর্মকর্তারা ঘটনা স্থলে হাজির হন। রাতেই আসে ঢাকা থেকে বোমা বিশেষজ্ঞ। পরদিন সকালে ব্যাগ খুলে পায় লাশ। অপর দিকে খবর আসে কুড়িগ্রমে পা, হাত ও মাথা পাওয়া গেছে। তৎপর হয়ে উঠে ময়মনসিংহে পুলিশ। প্রযুক্তি আর বিচনাতার সাথে হিসেব মিলাতে থাকে তারা। ময়মনসিংহ কোতোয়ালী মডেল থানায় একটি মামলাও করেন তারা। মামলা নং-১০২ তাং-২৫/১০/২০১৯ ইং। সৎ আর বুদ্ধিমত্তার জেলা পুলিশ সুপার শাহ মোঃ আবিদ হোসেন পিপিএম (বার) এর তদন্ত করার দায়িত্ব দেন জেলা গোয়েন্দা সংস্থার উপর ডিবির পুলিশ পরিদর্শক শাহ মোঃ কামাল আকন্দ পিপিএম (বার) তদন্ত কাজ শুরু করেন। এস আই আকরাম হোসেন ও এ এস আই জুয়েল গত ২৮ অক্টোবর জেলার জয়দেবপুর থেকে হত্যায় জড়িত সন্দেহে অভিযান চালিয়ে ৪ জন আটক করে। তারা হলেন ফারুক মিয়া (২৫),হৃদয় মিয়া (২০), সাবিনা আক্তার (১৮) ও মৌসুমী আক্তার (২২)। তাদের কাছ থেকে ডিবি পুলিশ তাদের হাতে খুন হওয়া ভিকটিমের নাম জানতে পারে। আটককৃতরা ঘটনার দ্বায় স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় আদালতে জবানবন্দি দেন। পুলিশ তাদের কথামত হত্যায় ব্যবহার করা ছুড়ি, ব্যাগ, ইট ও মোবাইল ফোন উদ্ধার করে।
ঘটনা সুত্রে জানা যায়, খুন হওয়া বকুলের বাড়ি নেত্রকোনা জেলার পূর্বধলা উপজেলা হুগলা গ্রামে। তার বাবার নাম ময়েজ উদ্দীন। একই এলাকার প্রতিবেশী গ্রেফতার হওয়া সাবিনাকে খুন হওয়া বকুল, ভালোবাসার জন্য উত্যক্ত করতো।
দীর্ঘ মেয়াদী পরিকল্পনায় খুন করা হয় বকুলকে। মোবাইল ফোনে ফুসলিয়ে বকুলকে গাজীপুরে জয়দেব পুরের খুনিদের ভাড়া বাসায় বকুলকে নিয়ে যাওয়া হয়। রাতেই খুনিরা তাদের ভাড়া বাসায় বকুলকে খুন করে। বকুলকে খুন করার পর লাশের দু’হাত, দুপা ও মাথা নিয়ে যায় সাবিনা ও তার ভাবী মৌসুমী। তারা এগুলো কুড়িগ্রাম জেলার দু’টি স্থানে ফেলে আসে। অপর দিকে বাকি দেহ হৃদয় ও ফারুক ময়মনসিংহের পাটগুদাম ব্রীজ মোড়ে ট্রলি ব্যাগে ভরে ফেলে যায়,পুলিশ সুপার জানান এ হত্যার সাথে জরিতরা হলেন ছাবিনা ও তার দুই ভাই একজন ভাবি, খুনিরা ভেবেছিল বকুলের লাশ বিচ্ছিন্ন ভাবে ছরিয়ে ছিটিয়ে পেলে দিলে হয়ত কেও কোন দিন জানতেও পারবেনা বকুলের খুন হওয়ার ঘটনা কিন্তু ময়মনসিংহের চৌকস পুলিশ অফিসার সদ্য অতিরিক্ত রেঞ্জ পদ মর্যাদা প্রাপ্ত পুলিশ সুপারের চোখকে ফাঁকি দিয়ে আরাল করতে পারে নাই,তার নির্দেশনায় আটক হল চার খুনি।

About Pratidiner Tottho

Check Also

পূর্বধলায় পরিবারিক কলহের জেরে গৃহবধুর আত্মহত্যা

আব্দুল্লাহ আল মামুন:নেত্রকোনার পূর্বধলা উপজেলার আগিয়া ইউনিয়নের মহিষবেড় গ্রামের মোহাম্মদ আলীর কন্যা আরিফা (১৯) সাথে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!
সর্বশেষ
ময়মনসিংহে পাগলা থানা পুলিশের অভিযানে আলোচিত দুই ডাকাত গ্রেফতার ঈশ্বরগঞ্জে গৃহবধূ নির্যাতন জামালপুরে প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালিত ধোবাউড়ায় হেরিংবন্ড ৫০০মিটার রাস্তার কাজের উদ্বোধন গাজীপুর মহানগর যুবলীগের উদ্যোগ শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে র‍্যালি ও সমাবেশ পূর্বধলায় পরিবারিক কলহের জেরে গৃহবধুর আত্মহত্যা সাতক্ষীরায় ভারতীয় বিএসএফের ছিনতাই হওয়া রাইফেল সহ যুবক আটক শহীদ আহসানউল্লাহ মাস্টারের ১৮তম শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে স্মৃতিচারণ ও দোয়া মাহফিল ময়মনসিংহে পিবিআইয়ের ওয়ার্কশপ প্রোগ্রাম অনুষ্ঠিত নেত্রকোনায় জাতীয় শ্রমিক লীগের সভাপতি হতে চান আশরাফ আলী