রবিবার , জানুয়ারি ১০ ২০২১
Home / অপরাধ / ঈশ্বরগঞ্জে অপরাধ নির্মূলে ও গুরুত্বপূর্ণ মামলার রহস্য উদ্ঘাটনের জন্য পুরস্কৃত হলেন ওসি মোখলেছুর রহমান আকন্দ

ঈশ্বরগঞ্জে অপরাধ নির্মূলে ও গুরুত্বপূর্ণ মামলার রহস্য উদ্ঘাটনের জন্য পুরস্কৃত হলেন ওসি মোখলেছুর রহমান আকন্দ

আরিফ রববানীঃময়মনসিংহ রেঞ্জ ডিআইজি কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে ফেব্রুয়ারি মাসের মাসিক অপরাধ সভায় গুরুত্বপূর্ণ মামলার রহস্য উদ্ঘাটনের জন্য ঈশ্বরগঞ্জ থানার ওসি মোখলেছুর রহমান আকন্দকে পুরস্কার প্রদান করেন রেঞ্জ ডিআইজি।১২ই মার্চ বৃহস্পতিবার সভায় ৬টি ক্যাটাগরিতে এই পুরস্কার প্রদান করা হয়।

এসময় উত্তম, ভাল কাজ ও দায়িত্বশীলতার সাথে গুরুত্বপূর্ণ এবং হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটনসহ দ্রুততম সময়ে জড়িদদের গ্রেফতার করার সফলতা অর্জন করায় ময়মনসিংহ রেঞ্জের ১১ পুলিশ কর্মকর্তাকে পুরস্কৃত করা হয়েছে। পুরস্কার প্রাপ্তদের মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ মামলার রহস্য উদ্ঘাটনের জন্য নেত্রকোণার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার প্রশাসন এসএম আশরাফুল আলম, ময়মনসিংহ সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ আল আমিন, ময়মনসিংহ ডিবির পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মোঃ ফারুক আহমেদ, ঈশ্বরগঞ্জ থানার ওসি মোখলেছুর রহমান আকন্দ, নেত্রকোণা মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) নাজমুল হাসান।

এছাড়া গুরুতর ঘটনা প্রতিরোধে দায়িত্বশীলতায় দুর্গাপুর সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার শারমীন সুলতানা নেলী জাতীয় জরুরি সেবা “৯৯৯” থেকে কল প্রাপ্তির ক্ষেত্রে দ্রততম সময়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছা সংক্রান্তে তারাকান্দা থানার এসআই রুবেল রানা, শ্রেষ্ট মাদক উদ্ধারকারী হিসেবে শেরপুর ডিবির এসআই মাজহারুল ইসলাম, গ্রেফতারী পরোয়ানা নিষ্পত্তিকারী অফিসার হিসাবে ভালুকার এসআই মতিউর রহমান এবং দক্ষ অফিসার হিসাবে নকলার এসআই মোঃ সুরুজ্জামানকে পুরস্কৃত করা হয়।

তবে ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে চাঞ্চল্যকর ঘটনা পান ব্যবসায়ী হেলাল উদ্দিনকে পরিকল্পিতভাবে হত্যার ঘটনায় হেলাল হত্যার মূল পরিকল্পনাকারী উত্তমকে আটক করতে হুজুর সেজেছিলেন থানার ওসি মোখলেছুর রহমান । তার এই কৌশলী অভিযান উপজেলায় ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করেন ঈশ্বরগঞ্জের ওসি মোখলেছুর রহমান। পুলিশ জানায়, মাত্র ২০ হাজার টাকার জন্য গত ১৮ জানুয়ারি ২০২০ সালে ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার রাজিবপুর ইউনিয়নের বল্বব গ্রামের বাসিন্দা পান ব্যবসায়ী হেলাল উদ্দিনকে (৩৫) শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয় । এদিকে নিহত হেলালের স্ত্রী মাজেদা খাতুন তার স্বামী নিখোঁজ মর্মে থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন । জিডির সূত্র ধরেই হেলাল হত্যাকান্ডে জড়িত ৯ জনকে আটক করতে সক্ষম হয় থানা পুলিশ । ঈশ্বরগঞ্জ থানার ওসি মোখলেছুর রহমান জানান,জিডির সূত্র ধরে আক্কাস ওরফে আকাশ নামের একজনকে আটক করা হয় । আটক আকাশকে জিজ্ঞাসাবাদ করে জানা যায়, ১৮ জানুয়ারি হেলাল উদ্দিন পান বিক্রি করে বাড়ির উদ্দেশ্যে যাচ্ছিলেন । বাড়ির কাছাকাছি যাওয়ার পর রাত দেড়টার দিকে হেলালের মুখ চাপা দিয়ে অপহরণ করে নিয়ে যায় হত্যাকারীরা । এরপর পরিকল্পিতভাবে হেলালকে হত্যার পর লাশ একটি টয়লেটের সেফটি ট্যাংকির ভেতর ফেলে দেয় । এরপর টয়লেটের ট্যাঙ্কির ভেতর মাটিচাপা দিয়ে লাশ ঢেকে রাখে । গত ১৮ জানুয়ারি টয়লেটের ভেতর মাটিচাপা অবস্থায় লাশ উদ্ধার করা হয় । এরপর তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহার ও কৌশলে খুনের রহস্য উন্মোচন করা হয় । ওসি জানান, আকাশকে আটকের পর তাকে কৌশলে জিজ্ঞাসাবাদ করলে সে ফারুক নামে জড়িত আরেক জনের নাম বলে দেয় । ফারুক জানায়, রিপন নামের আরেকজন জড়িত । রিপনকে আটক করে জ্ঞিাসাবাদ করা হলে সে জানায়, হত্যার মূল পরিকল্পনাকারী উত্তম নামের একজন । সে সিলেটে অবস্থান করছে । ওসি মোখলেছুর রহমান বেশভূসায় হুজুর সেজে টিম নিয়ে সিলেটে অভিযান পরিচালনা করেন ।
ওসির সফল অভিযানে গ্রেফতার হয় উত্তম । গ্রেফতারকৃত উত্তম পুলিশের কাছে স্বীকারোক্তি দেয় এ হত্যাকান্ডে ফারুক, রুবেল, কাঞ্চন, আমিন, এনামুল, আকাশ, শামছুল, সোহেলসহ আরো অনেকেই জড়িত । উত্তম জানিয়েছে, হত্যার আগে সে হেলালকে পেছন থেকে জড়িয়ে ধরেছিল । বাকীরা এসময় হেলালের মুখ গামছা দিয়ে বেঁধে রাখে। এরপর ধান ক্ষেতে নিয়ে গিয়ে ধারালো অস্ত্রের আঘাতে এবং শ্বাসরোধে হেলালকে হত্যা করা হয় । মৃত্যু নিশ্চিতের পর লাশ একটি টয়লেটের সেফটি ট্যাংকির ভেতর ফেলে দেয় । এরপর টয়লেটের ট্যাঙ্কির ভেতর মাটিচাপা দিয়ে লাশ ঢেকে রাখে । মৃত্যুর আগে হেলাল তাদেরকে বলেছিল যে, আমি তোমাদের চিনেছি, তোমরা কারা ? হত্যার ২১ দিন পার হলেও হাল ছাড়তে নারাজ ছিলেন, সাহসী ও দক্ষ অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোখলেছুর রহমান । লেবাস বদল করে ফোর্স নিয়ে খুনিকে গ্রেফতার করে উপজেলায় তোলপাড় সৃষ্টি করেন। এছাড়াও ওসি মোখলেছুর রহমান তার ছদ্মবেশী অভিযানে এলাকায় মাদক,সন্ত্রাস,ছিনতাই, চুড়ি,ডাকাতি,ওয়ারেন্টভূক্ত আসামী গ্রেফতারসহ বিভিন্ন অপরাধ নিমুলের মাধ্যমে উপজেলার আইন শৃঙ্খলার উন্নয়নে ভূমিকা রাখায় তিনি শ্রেষ্ঠত্বের এই পুরস্কারে ভূষিত হন বলে জানা গেছে।

About Pratidiner Tottho

Check Also

গৌরীপুরে ভাতিজাকে বাঁচাতে এসে চাচা খুন

মোঃ আব্দুল লতিফঃ বিশেষ প্রতিনিধি: ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলার মাওহা ইউনিয়নের কুড়িপন বাজারে ভাতিজাকে বাঁচাতে এসে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!
সর্বশেষ